1. sheikhrobirobi008@gmail.com : dailynayakontho :
  2. admin@dailynayakontho.com : unikbd :
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক সোসাইটি (বিএমএসএস) এর অপপ্রচার বন্ধের আহ্বান। ডেইলি নয়া কণ্ঠ আমের রাজধানী রাজশাহীতে জমে উঠেছে আমের বাজার। ডেইলি নয়া কণ্ঠ রাজশাহীতে রিমালের কারণে  হচ্ছে তীব্র ঝড়বৃষ্টি। ডেইলি নয়া কণ্ঠ বালিয়াকান্দিতে প্রতিপক্ষের হামলায় অসহায় নারীর ঘর ভাংচুরের অভিযোগ। ডেইলি নয়া কণ্ঠ মদন উপজেলার উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে চাই, চেয়ারম্যান প্রার্থী মমতাজ হোসেন চৌধুরী। ডেইলি নয়া কণ্ঠ পাংশায় মাদকসহ গ্রেপ্তার-৪। ডেইলি নয়া কণ্ঠ পবা উপজেলা নির্বাচন উপলক্ষ্যে আরএমপির নোটিশ। ডেইলি নয়া কণ্ঠ মতিহার থানা পুলিশের মিথ্যা মামলা থেকে বাঁচতে ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন। ডেইলি নয়া কণ্ঠ রাজশাহীতে ড্রেন থেকে বিচ্ছিন্ন পা উদ্ধার। ডেইলি নয়া কণ্ঠ বিজ্ঞান কুইজ প্রতিযোগিতায় জাতীয় পর্যায়ে নির্বাচিত তিলকপুর উচ্চ বিদ্যালয়। ডেইলি নয়া কণ্ঠ

অপারেটরদের হাতে জিম্মি রাজশাহীর বরেন্দ্র অঞ্চলের অধিকাংশ কৃষক। নয়া কণ্ঠ

  • প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৭১ বার পঠিত

অপারেটরদের হাতে জিম্মি রাজশাহীর বরেন্দ্র অঞ্চলের অধিকাংশ কৃষক।

_____________রাজশাহী ব্যুরো

জমিদারি প্রথায় কৃষক শোষণের কথা জানা গেলেও, সেরকম চিত্রই যেন শত বছর পর পাওয়া গেলো রাজশাহীর বরেন্দ্র অঞ্চলের মাঠে মাঠে। সেচের কাজে নিয়োজিত গভীর নলকূপ অপারেটররা জমিদারের উমেদারের ভূমিকায় যেন অবতীর্ণ হয়েছে। তাদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে বরেন্দ্র অঞ্চলের কয়েক লাখ কৃষক।
সেচের জন্য নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে কয়েকগুণ অর্থ তারা কৃষকদের কাছ থেকে আদায় করছে। অপারেটরদের অনৈতিক দাবি কৃষকরা না মানলে তাদের জমিতে পানি দেওয়াই বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে । ২০২২ সালের মার্চে সেচ না পেয়ে বরেন্দ্র অঞ্চল গোদাগাড়ি এলাকায় দুজন কৃষকের আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটেছে । চলতি আলু ও বোরো মৌসুমে বরেন্দ্রর বিভিন্ন এলাকায় গভীর নলকূপ অপারেটররা কৃষকদের জিম্মি করে সেচের চার্জ বাবদ অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে।
বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ) পরিচালিত গভীর নলকূপ অপারেটরদের বেপরোয়া সেচ বাণিজ্যের কবলে পড়ে রাজশাহী অঞ্চলের কৃষকদের অবস্থা এখন শোচনীয়। কৃষকদের কষ্টের ফসলের বড় অংশই চলে যাচ্ছে গভীর নলকূপ অপারেটরদের পকেটে । সরকারের সেচ ভর্তুকি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে কৃষক। খরাপ্রবণ বরেন্দ্র অঞ্চল রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ ও নাটোর জেলা এলাকা নিয়ে গঠিত। রাজশাহী অঞ্চলের মানুষের মূল পেশা কৃষি। তিন দশক আগেও বরেন্দ্রের তপ্ত উত্তপ্ত লাল মাটিতে বছরে একটিমাত্র ফসল হতো। বৃষ্টি নির্ভর আমন ফসলের পর সারা বছরই বরেন্দ্রর লাখ লাখ হেক্টর জমি পতিত পড়ে থাকত। ১৯৯১ সালে কৃষি মন্ত্রণালয় বরেন্দ্র প্রকল্পের আওতায় গভীর নলকূপ স্থাপন শুরু করলে বরেন্দ্রের কৃষি চিত্র দ্রুত বদলে যেতে শুরু করে। এখন বরেন্দ্রর মাটিতে বছরে তিন চারটি ফসল উৎপন্ন হয়। তবে বরেন্দ্রর পুরো কৃষি ব্যবস্থাটা নিবিড় সেচনির্ভর। ফলে গভীর নলকূপের পানি কৃষকের কাছে যেন সোনার হরিণ। আর এই সেচ ব্যবস্থাটাই গভীর নলকূপ অপারেটরদের হাতে জিম্মি। এক সময় বরেন্দ্রর গভীর নলকূপগুলো ডিজেল চালিত হলেও এখন চলে বৈদ্যুতিক মোটরে। ফলে কৃষকের সেচ খরচ অনেক কম হওয়ার কথা। কিন্তু কৃষকরা সেই সুবিধা মোটেও পান না। সেচের নীতিমালায় আছে ঘণ্টায় ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা চার্জ নেওয়া যবে। কিন্তু নলকূপ অপারেটররা ঘণ্টার বদলে ফসল মৌসুমের জন্য কৃষকদের কাছ থেকে অগ্রিম ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা আদায় করছে। কোনো কৃষক অপারেটরের শর্তে রাজি না হলে তার জমিতে সেচ দেওয়া বন্ধ রাখা হচ্ছে। বিএমডিএ সূত্রে জানা গেছে, সেচ সুবিধা নিশ্চিত কল্পে প্রতিটি গভীর নলকূপে কমিশন ভিত্তিতে একজন অপারেটর নিয়োগ দেওয়া হয়। কৃষকরা প্রি-পেইড সেচ কার্ড নিয়ে অপারেটরদের কাছে গেলে কোনো পানি পান না। ১ ঘণ্টা সেচের জন্য ১২৫ টাকা মূল্যের প্রি-পেইড কার্ড লাগে। অথচ ১ ঘণ্টার জন্য অপারেটরদের দিতে হচ্ছে ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা। অনেক অপারেটরের অধীনে একাধিক নলকূপও থাকে। এমনকি এ কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নয় এমন লোকজনও ঘুসের বিনিময়ে একাধিক নলকূপ অপারেটর হয়েছেন। তানোর ও গোদাগাড়ীর বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে দেখা যায় , গভীর নলকূপের অপারেটর নিয়োগ হয় রাজনৈতিক বিবেচনায়। তাই চলে বেপরোয়া সেচ বাণিজ্য।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএমডিএর নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশিদ গণমাধ্যমকে জানান, গভীর নলকূপের প্রকারভেদে ঘণ্টাপ্রতি ১২৫ থেকে ১৩৫ টাকা সেচ চার্জ ধার্য করা আছে। কোনো অপারেটর এই নিয়ম লঙ্ঘন করে কৃষকের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নিলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোনো অপারেটর অন্যায়ভাবে অতিরিক্ত অর্থ চাইলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

শেয়ারঃ

এই জাতীয় অন্যান্য সংবাদ
২০২৩ © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Developed By UNIK BD