1. sheikhrobirobi008@gmail.com : dailynayakontho :
  2. admin@dailynayakontho.com : unikbd :
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
পাটগ্রামে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর উদ্বোধন। ডেইলি নয়া কণ্ঠ স্বপন কুমার মজুমদার এর সফল অভিযানে আলোচিত  মামলার ৩ আসামী গ্রেপ্তার। ডেইলি নয়া কণ্ঠ মেহেরপুরে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী-২০২৪ এর পুরষ্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠান। নয়া কণ্ঠ পোরশায় আগুনে পুড়ে ছাই ৪টি দোকান। ডেইলি নয়া কণ্ঠ শেরপুরে কুড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদককে কুপিয়েছে প্রতিপক্ষ। ডেইলি নয়া কণ্ঠ আরএমপি ডিবি’র অভিযানে ভুয়া তিন সেনা সদস্য গ্রেপ্তার। ডেইলি নয়া কণ্ঠ আরএমপি ডিবি’র অভিযানে ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট উদ্ধার; গ্রেপ্তার ১। ডেইলি নয়া কণ্ঠ রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব’র আগমন। ডেইলি নয়া কণ্ঠ বেসিক ব্যাংক একীভূত করার প্রতিবাদে রাজশাহীতে মানববন্ধন। ডেইলি নয়া কণ্ঠ কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন: সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক শুভ। ডেইলি নয়া কণ্ঠ

রাজবাড়িতে মরিচ পেয়াজ আলুর দাম অত্যাধিক হারে বৃদ্ধি।নয়া কণ্ঠ

  • প্রকাশিতঃ রবিবার, ১ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৭৮ বার পঠিত

রাজবাড়িতে মরিচ পেয়াজ আলুর দাম অত্যাধিক হারে বৃদ্ধি

রাজবাড়ী জেলা প্রতিনিধিঃ ছাব্বির হোসেন বাপ্পি,

রাজবাড়ীতে মরিচ, পেয়াজ ও আলুর দাম অত্যাধিক বেড়েছে। গত দুই দিনের ব্যাবধানে দ্বিগুন হয়েছে মরিচের বাজার দর। গত সপ্তাহের শেষ দিকে প্রতি কেজি কাচা মরিচ যেখানে ১০০ টাকা থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। দুই দিন ধরে সে মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা থেকে ২৫০ টাকায়।

এদিকে গত এক সপ্তাহ ধরে পেঁয়াজও বিক্রি হচ্ছে বাড়তি দামে। এক সপ্তাহ আগে প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়ছে ৬৫ টাকা থেকে ৭০ টাকায়, এক সপ্তাহ ধরে কেজিতে ১০/১৫ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজিতে। ৫০ টাকা কেজির এলসি পেঁয়াজ বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৭০/৭৫ টাকায়। আর দেশীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি দরে।এদিকে বাজারে আলুর সরবরাহ থাকলেও বর্তমানে তা ৪৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হতে দেখা গেছে।যা গত সপ্তাহের প্রথম দিকে ৪০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল।

বাজারে আসা ক্রেতা জালাল ফকির, সাইদুর রহমান বলেন, যে হারে বাজার পরিস্থিতি ক্রয় ক্ষমতা আমাদের নাগালে বাইরে চলে যাচ্ছে এতে আমাদের আর বাচার উপায় নাই। বর্তমানে কাচা মরিচ, পেঁয়াজ ও আলুর দাম সবচেয়ে বেশি। সরকারতো তদারকি করেনা করলে আমাদের মত খেটে খাওয়া মানুষ একটু স্বস্তি পেতাম বলে জানান।
ব্যাবসায়ী সেলিম মিয়া, কালাম মোল্লা বলেন, তাদের কিছু করার নাই। আড়ৎদারদের কাছ থেকে অতিরিক্ত দামে তাদের মালামাল কিনতে হচ্ছে। যে কারণে তারা বাধ্য হচ্ছে বেশি দামে পন্য বিক্রি করতে।

শেয়ারঃ

এই জাতীয় অন্যান্য সংবাদ
২০২৩ © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Developed By UNIK BD