1. sheikhrobirobi008@gmail.com : dailynayakontho :
  2. admin@dailynayakontho.com : unikbd :
শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১১:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বগুড়ায় আলোচিত জোড়া খুনের মামলার আসামিরা আত্মগোপনে বিশেষ প্রতিনিধি আব্দুল হালিম মন্ডল। ডেইলি নয়া কণ্ঠ আবুল হোসেন মোল্লাকে ১৪ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার। ডেইলি নয়া কণ্ঠ মেহেরপুরে গ্রামীণ কর্মসংস্থান প্রকল্পের সুবিধাভোগীর মাঝে চেক বিতরণ। ডেইলি নয়া কণ্ঠ খুলনার কয়রায় বজ্রাঘাতে শিশুসহ ২ জন নিহত। ডেইলি নয়া কণ্ঠ নরসিংদীতে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে গুলি ও টেটা বিদ্ধ হয়ে পুলিশ সহ আহত ২০। ডেইলি নয়া কণ্ঠ কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীর উপর হামলার ঘটনায় কাউন্সিলরকে শোকজ। ডেইলি নয়া কণ্ঠ তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মসূচি। ডেইলি নয়া কণ্ঠ কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ১৩ নং আদ্রা ইউনিয়নে মন্দুক গ্রামের কালভার্ট ভাঙ্গা , ভোগান্তিতে জনগন। ডেইলি নয়া কণ্ঠ বজ্রপাতে চরফ্যাশনে কৃষক নিহত, স্বজনের আহাজারি। ডেইলি নয়া কণ্ঠ রাজশাহী জেলা ও মহানগর যুবলীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা। ডেইলি নয়া কণ্ঠ

আদালতের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ব্যক্তি মালিকানাধীন জমির ওপর দিয়ে নালা নির্মাণের অভিযোগ। ডেইলি নয়া কণ্ঠ

  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ১০ জুন, ২০২৪
  • ১০ বার পঠিত

 

আদালতের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ব্যক্তি মালিকানাধীন
জমির ওপর দিয়ে নালা নির্মাণের অভিযোগ

আবু রায়হান রাসেল নওগাঁ প্রতিনিধি,
নওগাঁ পত্নীতলা উপজেলার মহেশপুর কদম-কুড়ী গ্রামের পানি নিষ্কাশনের জন্য নালা নির্মাণের কাজ চলছে। অভিযোগ উঠেছে আদালতে নিষেধাজ্ঞা আদেশ সত্ত্বেও জোর করে ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি দখল করে ওই নালা নির্মাণ করা হচ্ছে।
এ ঘটনায় জমির মালিক মহেশপুর কদম-কুড়ী গ্রামের বাসিন্দা আজিবর রহমান নালা নির্মাণকাজ বন্ধ ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব,পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ (ইউএনও) সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লিখিত আবেদন করেছেন।
গত ৩ জুন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব বরাবর দেওয়া ওই লিখিত আবেদন সূত্রে জানা যায়, মহেশপুর কদম-কুড়ী গ্রামের পানি নিষ্কাশনের জন্য পত্নীতলা সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) বাস্তবায়নে মোন্নাপুকুর থেকে কদমকুড়ী মোড় পর্যন্ত প্রায় ১০০ মিটার দৈর্ঘ্যরে একটি নালা নির্মাণের কাজ চলছে। কদমকুড়ী মোড় গ্রামের পূর্ব দিকের অংশে যাওয়া সড়কের দক্ষিণ পাশ দিয়ে নালাটি নির্মাণের জন্য বর্তমানে মাটি খননের কাজ চলছে। ওই ৩০০ মিটার দৈর্ঘ্যের নির্মাণাধীন ওই নালার অধিকাংশ অংশই অভিযোগকারী আজিবর রহমান ও তাঁর ভাইদের। মহেশপুর কবরস্থান সংলগ্ন মোন্নাপুকুর নামের একটি পুকুর থেকে পূর্ব দিকে ১০০ মিটার দূরে সরকারি জলডারা থাকা সত্ত্বেও মোন্নাপুকুর থেকে পশ্চিম দিকে ব্যক্তি মালিকানাধীন জমির ওপর দিয়ে ৩০০ মিটার দৈর্ঘ্যরে ওই নালা নির্মাণ করা হচ্ছে। ৩০০ মিটার দৈর্ঘ্যরে ওই নালার প্রায় তিন-চতুর্থাংশ অংশই আজিবর রহমান ও ভাইদের। নালা নির্মাণের জন্য জমি দিতে অনিচ্ছা সত্ত্বেও জমি অধিগ্রহণ না করেই পত্নীতলা সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ওবায়দুল ইসলাম গত বছরের নভেম্বর মাসে জোর করে নির্মাণের কাজ শুরু করেন। ব্যক্তি মালিকানাধীন জমির ওপর দিয়ে সরকারি প্রকল্পের টাকা দিয়ে নালা নির্মাণকাজ বন্ধের দাবিতে আদালতে মামলা করলে আদালত গত বছরের ১২ নভেম্বর কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে নালা নির্মাণকাজের ওপর চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আদেশ দেন।
আদালতের চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আদেশ থাকা সত্ত্বেও গত ২৩ মে ইউপি চেয়ারম্যান ওবায়দুল ইসলামের ছত্রছায়ায় একদল লাঠিয়াল বাহিনী রাস্তার পাশে থাকা আজিবর রহমানের জমির ওপর দিয়ে নালা নির্মাণের জন্য খনন করেন। এ ঘটনায় আজিবর রহমান আদালতে ১০৭ ধারায় মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা আদালতে হাজির হয়ে এ ধরণের কাজ আর করবেন বলে মুচলেকা দেন। আদালতে মামলা চলমান থাকা সত্ত্বেও চেয়ারম্যান ওবায়দুল ইসলামের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আবারও যে কোনো সময় জোর করে নালা নির্মাণ করবেন বলে হুমকি-ধামকি দিয়ে যাচ্ছেন। এ বিষয়ে থানা পুলিশ ও ইউএনওর কাছে বারবার অভিযোগ করার পরেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না ভুক্তভোগী আজিবর রহমান।
অভিযোগকারী আজিবর রহমান বলেন, ‘গ্রামবাসীর চলাচলের জন্য ক্রয়সূত্রে পাওয়া ৮৮ দশমিক ৫ শতাংশ জমি থেকে প্রায় ৮ শতাংশ জমি ছেড়ে দিয়েছি। আমার জমির দিয়ে করা সড়ক দিয়ে গ্রামের লোকজন চলাচল করে। এখন সেই সড়কের দক্ষিণ অংশ দিয়ে আমার বসতবাড়ীর প্রাচীর ও আম বাগানের কিছু অংশের ক্ষতি সাধন করে জোর করে নালা নির্মাণ করা হচ্ছে। পত্নীতলা ইউপি চেয়ারম্যান ওবায়দুলের নেতৃত্বে গ্রামের কিছু লোক আমার ক্ষতিসাধনের জন্য জোর করে নালা নির্মাণের পাঁয়তারা করছে। যাতায়াতের জন্য জমি ছেড়ে দিয়েছে এখন আমি নালা নির্মাণের জন্য কোনো জমি দিতে রাজি নই। এজন্য আমি আদালতে মামলাও করেছি।’
আজিবর রহমানের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান ওবায়দুল ইসলাম বলেন, ‘আজিবরের মামলার নিষেধাজ্ঞা আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করা হয়েছে। আপিলের পর নিষেধাজ্ঞা আদেশ আর কার্যকর থাকে না। তাই এখন নালা নির্মাণে আইনি কোনো বাধা নেই বলে আমি মনে করি।

শেয়ারঃ

এই জাতীয় অন্যান্য সংবাদ
২০২৩ © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Developed By UNIK BD